Tollywood

এভাবেও ফিরে আসা যায়, ‘দিদি নম্বর ওয়ান’এর মঞ্চে ক্যানসারজয়ী ঐন্দ্রিলা, জমিয়ে মজা করলেন রচনার সঙ্গে,আবেগঘন পোস্ট সব্যসাচীর!

এক বছর আগের কথা, অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মা দ্বিতীয়বার ক্যানসার আক্রান্ত হন। বিরল রোগে আক্রান্ত হয়েও সমানে লড়ে গিয়েছেন তিনি। হার মানতে শেখেন নি যে। আর আজ, সেই ঐন্দ্রিলাই ক্যানসারকে হারিয়ে সুস্থ জীবনের পথে। এবার তিনি খেলতে এলেন ‘দিদি নম্বর এয়ান’।

গত বছর সরস্বতী পুজোর পরই খবর মেলে যে ঐন্দ্রিলা শর্মা ক্যানসার আক্রান্ত। দ্বিতীয়বার এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মনোবল প্রায় ভেঙে যায় ঐন্দ্রিলার। ঠিক করে নিয়েছিলেন যে আর এই রোগের সঙ্গে লড়বেন না তিনি। কিন্তু সেই সময় তাঁর পাশে দাঁড়ায় তাঁর প্রেমিক তথা অভিনেতা সব্যসাচী চৌধুরী। সাহস জোগান তিনি ঐন্দ্রিলার মনে।

ধীরে ধীরে মনকে শক্ত করে মারণরোগের সঙ্গে লড়ার শক্তি সঞ্চয় করেন ঐন্দ্রিলা। কেমোর জন্য মাথা ন্যাড়া করাতে হয়েছিল তাঁকে। সেখানেও তাঁকে সঙ্গ দেন সব্যসাচী। নিজেও কেটে ফেলেন চুল। অভিনেত্রী বাবা, তাঁর প্রিয় বান্ধব্বিতার মনে সাহস জোগানোর জন্য নিজেদের মাথা কামিয়ে ছিলেন। দীর্ঘ একবছর ধরে এই রোগের সঙ্গে লড়াই করেছেন ঐন্দ্রিলা। আর এই সময় প্রতিটা মুহূর্তে তিনি পাশে পেয়েছেন তাঁর ভালোবাসার মানুষটিকে।

সব্যসাচী প্রতিনিয়ত ঐন্দ্রিলার শারীরিক অবস্থার খবরাখবর দিতেন ঐন্দ্রিলার অনুরাগীদের সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। ঐন্দ্রিলাকে নিয়ে তাঁর লেখনী সকলের মন ছুঁয়ে যায়। শেষ পর্যন্ত ক্যানসারকে হারিয়ে জয়ী হয়েছেন ঐন্দ্রিলা। এবার ধীরে ধীরে স্বাভাবিক জীবনে ফেরার পালা।

শোনা যাচ্ছে, ফের অভিনয়তেও ফিরবেন ঐন্দ্রিলা। তবে এর আগে তাঁকে দেখা গেল ‘দিদি নম্বর ওয়ান’-এর মঞ্চে। সম্প্রতি, সব্যসাচী সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি শেয়ার করেছেন। দুটি ছবির কোলাজ এটি। একই তারিখের দুটি ছবি, শুধু বছরটা আলাদা। গত বছর ১লা মার্চের দিন ঐন্দ্রিলা ভর্তি ছিলেন দিল্লির হাসপাতালে। সেদিন তাঁর কেমো শুরু হয়। আর এই বছরের ১লা মার্চ ঐন্দ্রিলা ‘দিদি নম্বর ওয়ান’-এর মঞ্চে।

গত এক বছরে কত কিছুই না পাল্টে গিয়েছে। কিন্তু পাল্টায় নি ঐন্দ্রিলার প্রতি সব্যসাচীর ভালোবাসা।

এই ছবি পোস্ট করে সব্যসাচী লিখেছেন, “উপায় না থাকলে, হিমশীতল রাতে নিজের স্বপ্নগুলোকে ঝলসে তাপ পোয়াতে হয়। ভোরের আলো ফুটলে, ফের নতুন করে স্বপ্ন বুনতে হয়। নিজের স্বপ্নপোড়া গন্ধ যতদিন তোমার নাকে লেগে থাকবে, জানবে তুমি অপ্রতিরোধ্য। এভাবেই ফিরে আসা যায়”।

সত্যিই তো এভাবেই ফিরে আসা যায়। এভাবেই যে ফিরে আসা সম্ভব, তা প্রমাণ করে দিয়েছেন ঐন্দ্রিলা। নিজের মনের জোর ও ভালোবাসার মানুষদের পাশে নিয়ে লড়ে গিয়েছেন তিনি।

জয়ী হয়েছেন জীবন যুদ্ধে। এই ছবি দেখে আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েছেন নেটিজেনরা। এই ছবিতে কমেন্ট করেছেন খোদ ঐন্দ্রিলাও। লিখলেন, “তুমি আমাকে কাঁদাচ্ছ”। এভাবেই বেঁচে থাকুক ভালোবাসারা, যারা দুর্দিনে ছেড়ে যায় না বরং আরও শক্ত করে ধরে কাছে টেনে নেয়।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button