Tollywood

Madhubani-Raja: স্বামী স্ত্রী দুজনেই ছেড়ে দিলেন অভিনয়। এখন অনুষ্ঠান বাড়িগুলোয় গিয়ে নিজেরাই করবেন এই কাজ! “সুখে থাকতে ভূতে কিলায়” তুমুল Troll করছে দর্শকরা

বাংলা টেলিভিশন দুনিয়ার অন্যতম জনপ্রিয় সেলিব্রেটি জুটি হলেন অভিনেতা রাজা গোস্বামী এবং অভিনেত্রী মধুবনী গোস্বামী। আজ থেকে ১২ বছর আগে অর্থাৎ ২০১০ সালে স্টার জলসার জনপ্রিয় মেগা সিরিয়াল ‘ভালোবাসা ডট কম’ থেকে ওম এবং তোড়া জুটি দর্শকদের হৃদয়ে পাকাপাকি ভাবে যেমন জায়গা করে নিয়েছিল ঠিক তেমন এই দুই অভিনেতা-অভিনেত্রী একে অপরের হৃদয়জুড়ে জায়গা করে নিয়েছিলেন।

পর্দার বাইরে দুজনের প্রেম গড়িয়েছিল বিয়ের মন্ডপ পর্যন্ত। টানা ৭ বছর চুটিয়ে প্রেম করার পর আজ থেকে ৫ বছর আগে অর্থাৎ ২০১৭ সালে বিয়ে করলেন রাজা এবং মধুবনী। তারপর দুজনের সংসার জুড়ে এসেছে এক ছোট্ট পুত্র সন্তান কেশব।

যদিও বিয়ের পর থেকেই পুরোপুরি সংসারিক হয়ে গিয়েছিলেন অভিনেত্রী এবং তাকে আর পর্দায় এরপর দেখা যায়নি। সন্তানের জন্মদানের পর সংসারের উপর বেশি করে মনোনিবেশ করলেন এই নায়িকা। অন্যদিকে রাজা তখনও অভিনয় করে যাচ্ছিলেন। চলতি বছরেই স্টার জলসার জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘ইসমার্ট জোড়ি’-র মঞ্চে একসাথে শেষবারের মতো দেখা গিয়েছে তাদেরকে এই প্রতিযোগিতায় খেলতে।

যদিও অভিনয় আর না করলেও অভিনেত্রীর কিন্তু একটি পার্লার রয়েছে নিজস্ব। এবং মাঝে মাঝে সেই সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের তথ্য তিনি শেয়ার করেন নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায়। সঙ্গে জুড়ে দেন ছেলের সঙ্গে নিজের ছবি অথবা গোটা পরিবারের সঙ্গে তার ছবি।


এবার শোনা গেল এই সবকিছুর বাইরে গিয়ে একেবারে অন্য ধরনের একটি পেশা বেছে নিতে চলেছেন এই দুই অভিনেতা এবং অভিনেত্রী। সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও শেয়ার করে নিয়ে অনুরাগীদের উদ্যেশ্যে রাজা মধুবনী জানিয়েছেন এবার থেকে জন্মদিনের কেক কাটা হোক কিংবা বিয়ের সিঁদুর দান অথবা গৃহপ্রবেশ থেকে প্রাক্ বিবাহ অভিযান যে কোন বিশেষ অনুষ্ঠানের ব্লগিং করতে পৌঁছে যাবেন তাঁরা। অর্থাৎ সেই বিশেষ মুহূর্তগুলোর ভিডিও ক্যামেরাবন্দি করে রাখবেন
দুজনে। ফোন নাম্বার পর্যন্ত দিয়ে দিয়েছেন।

ঠিক তারপরেই দুজনের ভক্তদের মধ্যে খুশির ঢেউ কারণ এক সম্পূর্ণ অন্য ধরনের অভিনেতা অভিনেত্রীকে পেতে চলেছেন তারা। এদিকে নিন্দুকরাও ময়দানে নেমে পড়েছে। কেউ প্রশ্ন করছে ফ্রিতে কাজ করবেন নাকি এর জন্য পয়সা দিতে হবে?

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button