Connect with us

Tollywood

কিছুতেই ভুলতে পারছেন না, ফের ‘থলথলে বউদি’, ‘কমরেট মাংসপিণ্ড’ নিয়ে মুখ খুললেন শ্রীলেখা! এবার দিলেন কড়া জবাব

Published

on

বিনোদন থেকে খেলা সবকিছুই বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্যে জানা সম্ভব। তবে তার মাঝে বেড়ে চলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায় বুলিংয়ের বিষয়টিও। কোনও একটা বিষয় নিয়ে সুযোগ পেলেই শুরু হয়ে যায় ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য। টলিউড থেকে বলিউডের সকল সেলিব্রিটিকেই কখনও না কখনও এই বুলিংয়ের মুখোমুখি হতে হয়েছে। সম্প্রতি টলিউড অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্রকে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্য করা হয়েছে, যার প্রতিবাদে তিনিও মোক্ষম জবাব দিলেন।

অভিনেত্রী শ্রীলেখা বরাবরই মেদবহুল ছিলেন। তার জন্য কম কটু কথাও শুনতে হয়নি। তবে শুধু নেটিজেনরা নয় অভিনেত্রী রিমঝিম মিত্রও তার বডি শেমিং করেছিলেন। এর আগেও গায়ের রঙ নিয়ে বাজে মন্তব্য করা হয়েছিল অভিনেত্রী শ্রুতি দাসকে নিয়ে। প্রথমে তিনি সেটাকে হালকা ভাবে নিলেও পরে আর সহ্য করতে না পেরে তিনি পুলিশের দ্বারস্থ হন।

সদ্য স্বামীকে হারানোর পরেও শোকস্তব্ধ মন্দিরা বেদিকে নিয়েও কটূক্তি করে হয়। কারণ তিনি তার স্বামীর শেষকৃত্যে জিন্স পরা অবস্থায় উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বলিউডের বর্ষীয়ান অভিনেতা দিলীপ কুমারের শেষকৃত্যে অভিনেতা শাহরুখ খান কেন সানগ্লাস পরে ছিলেন, তা নিয়েও নেটিজেনদের একাংশ ক্ষোভ প্রকাশ করে।

প্রসঙ্গত অভিনেত্রী নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেলে ‘আমি শ্রীলেখা’য় এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে একটি ভিডিও আপলোড করেন। তার নাম দেন ‘আমায় মোটা বলোনা’। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, মৈনাক গঙ্গোপাধ্যায় প্রথমদিকে ক্যামেরার পিছনে থাকলেও পরে তিনি সম্মুখে চলে আসেন এবং অভিনেত্রী সাদা টপ ও হট প্যান্ট পরে রয়েছেন। মৈনাক তাকে প্রশ্ন করেন, ‘এত ছোটো পোশাক পরলে ভার্চুয়াল জগতের নাগরিকরা নিন্দামন্দ করবে নাতো?’ যার জবাবে অভিনেত্রী বলেন, ‘কে কী বলবে তার জন্য আমার পোশাক পাল্টাতে হবে?’ এরপর তাকে দেখা যায় নীল কুর্তি পরে আসতে। যদিও হট প্যান্টের পরিবর্তন করেননি তিনি।

অভিনেত্রী রিমঝিম মিত্র শ্রীলেখাকে রাজনৈতিক দিকের পাশাপাশি ব্যক্তিগতভাবেও আক্রমণ করতে ছাড়েন নি। যার জন্য তাকে ব্লকও করে দেন অভিনেত্রী। এ প্রসঙ্গে রিমঝিম বলেন, ‘থলথলে বউদি আমায় ব্লকিয়েছে। কমরেট মাংস পিণ্ড কি এটা ঠিক করল আমার সঙ্গে?’

তবে এ বিষয়ে শ্রীলেখা জানান, মোটা বলাই যায়, তবে কাউকে অপমান করার উদ্দেশ্য নিয়ে বলা ঠিক নয়। তিনি এও জানান, এই মন্তব্যগুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মহিলারাই বেশি করে থাকে।

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Trending