Bangla Serial

Balijhor: অন্তিম মুহূর্তে ভেস্তে গেল স্রোত-ঝোড়ার বিয়ে! তবে কী মহার্ঘ্যর সঙ্গেই বাঁধা পড়বে ঝোড়া? ক্ষমতার কাছে ভালোবাসাকে হারতে‌ দেখে আশাহত ভক্তরা

বাংলা টেলিভিশনের জন্মকাল থেকেই বাঙালি দর্শকদের বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম হলো বাংলা ধারাবাহিক। এক একজনের এক একটি ধারাবাহিক প্রিয়। আর তাইতো সন্ধ্যা নামলেই মা-কাকিমারা বসে যান টিভির সামনে নিজেদের পছন্দসই সিরিয়ালটি দেখতে। আর টিআরপি তালিকায় ভালো পারফর্ম করলে থাকবে না হলে সরে যেতে হবে আপাতত এই প্রথাই চলছে টেলিভিশন জুড়ে। বাঙালির সিরিয়াল প্রেমের তালিকায় রয়েছে একাধিক সিরিয়াল। যদিও সম্প্রতি একাধিক চ্যানেলে বিভিন্ন সিরিয়াল বন্ধ হয়ে চালু হয়েছে একাধিক নতুন সিরিয়াল‌।কিন্তু তা সত্ত্বেও কোথাও গিয়ে বাঙালির সিরিয়াল প্রেমে খামতি আসেনি।

বর্তমানে স্টার জলসা’র অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক হল বালিঝড়! লীনা গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখনীতে এই ধারাবাহিকে পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছেন শৈবাল বন্দ্যোপাধ্যায় এবং স্নেহাশিস জানা। একটা সময় TRP তালিকায় রাজ করেছিল এই ধারাবাহিক খড়কুটো! গুনগুন-সৌজন্য’র জুটিকে ফেরানের আর্জি জানিয়েছিলেন ভক্তরা। গুঞ্জন সেই আর্জি মঞ্জুর করেন লীনা গঙ্গোপাধ্যায়। তাঁর লেখা ধারাবাহিকেই ফের স্টার জলসায় ফিরেছেন তৃণা ও কৌশিক। তবে এবার শুধু তৃণা আর কৌশিক নয়, তাঁদের সঙ্গেই‌ ফিরেছেন ইন্দ্রাশিস রায়! এবার রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে গল্প সাজিয়েছেন লীনা গঙ্গোপাধ্যায়। আর সেখানেই দেখা যাচ্ছে তৃণা, কৌশিক ও ইন্দ্রাশিসের ত্রিকোণ প্রেম। গত ৬ই ফ্রেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে ধারাবাহিক বালিঝড়।

এই ধারাবাহিকে দেখা যাচ্ছে যে সমুদ্র সেন নামে এক বড় পলিটিশিয়ানের মেয়ে ঝোরা! আর সেই পলিটিশিয়ানের নয়নের মনি তাঁর প্রিয় পাত্র মহার্ঘ্য। এই ধারাবাহিকে দেখানো হচ্ছে, ঝোরা ভালবাসে স্রোত ওরফে ইন্দ্রাশিস’কে, তাকেই বিয়ে করতে চায়, কিন্তু সমুদ্র সেন ঝোরার সঙ্গে মহার্ঘ্যরই বিয়ে দেবেন বলে মনস্থির করেছেন। এমনকি সর্বসম্মুখে বিয়ের কথা ঘোষণাও করে দিয়েছেন।

এই ঘোষণা শুনে একদিকে যেমন স্রোত রেগে যায়, এবং ভাবে যে,তাকে এই ঘোষণা শোনানোর জন্যই ডেকেছিলো ঝোরা। অন্যদিকে মহার্ঘ্যকে ভুল বোঝে ঝোরা। সে ভাবে রাজত্ব পাওয়ার লোভে এই পরিকল্পনা করেছে মহার্ঘ্য। ঝোরার জন্য কষ্ট পাচ্ছে এই ধারাবাহিকের দুই নায়কই।

মহার্ঘ্যর সঙ্গে বিয়ের রাতে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় ঝোড়া। স্রোতের বাড়িতে বসে বিয়ের আসর। আর সেখানে পুলিশ নিয়ে এসে উপস্থিত হয় ঝোড়ার বাবা সমুদ্র সেন, ঝোড়ার মা ও মহার্ঘ্য।‌‌ স্রোতকে তাঁরা তাঁদের মেয়েকে তুলে নিয়ে আসার অভিযোগে বিদ্ধ করে। এরপর ঝোড়া ও স্রোতের বিয়ে ভেঙ্গে তাঁরা ঝোড়া’কে নিয়ে চলে যায়। যাওয়ার আগে ঝোড়া স্রোতকে বলে যায়‌ সে শুধুমাত্র স্রোত’কেই ভালোবাসে। অসমাপ্ত এই প্রেম কাহিনী দেখে চোখে জল এসেছে ভক্তদের।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এক ভক্ত লিখেছেন, “যারা ঝোরা মহার্ঘ্য বিয়ে নিয়ে খুব খুশি তারা কী কখনো পারতেন নিজের ভালোবাসার মানুষ কে ছেরে অন্য একটা ছেলে কে বিয়ে করতে এটা সিরিয়াল বলেই সম্ভব। তবে সিরিয়াল হক যাই হক এভাবেই হাজারও ভালোবাসা টাকা আর ক্ষমতার কাছে শেষ হয়ে যায়। যারা স্রোত কে ভুল বুঝতেছেন তারা একবার স্রোত এর জায়গাই নিজেকে বসিয়ে দেখুন মুখে বললেই সব কিছু হয়না বাস্তবতা অনেক কঠিন
এভাবেই শেষ হই হাজার ও ভালোবাসা।”

Related Articles

Back to top button