Bangla Serial

Guddi: এক বছরের মধ্যে টুয়েলভ পাস করা মেয়ে আইপিএস অফিসার হয়ে গেল! দর্শক কি গন্ডমূর্খ, যে কিছুই বোঝে না? গুড্ডি ধারাবাহিকের সম্প্রতি ট্র্যাক দেখে এমনটাই বলছে নেটিজেনরা

বর্তমানে ধারাবাহিকে এমন বেশ কিছু জিনিস দেখানো হয়, যা রীতিমতো অবাস্তব এবং যা নিয়ে ট্রোলিং হয় সোশ্যাল মিডিয়াতে। কারণ কোনো ধারাবাহিক এখন যেভাবে শুরু হয় সেই গল্পের ট্র্যাক পরিবর্তন হতে হতে তা অন্য জায়গায় গিয়ে পৌঁছয়। তাই পরবর্তীকালে টিআরপি টানতে অনেক রকমের ট্র্যাক ঢোকানো হয় ধারাবাহিকের গল্পে, যার সঙ্গে বাস্তবের কোন মিল পাওয়া যায় না। আর এমনটাই দেখতে পাওয়া যাচ্ছে বর্তমানে বাংলা টেলিভিশনের বেশ কিছু ধারাবাহিকে।

বর্তমানে স্টার জলসার একটি জনপ্রিয় এবং চর্চিত ধারাবাহিক হল লীনা গঙ্গোপাধ্যায়ের লেখা ‘গুড্ডি’। যেখানে গল্প শুরু হয়েছিল গুড্ডি ক্লাস টুয়েলভের একটি মেয়ে এরপর তার সঙ্গে বিয়ে হয়ে যায় আইপিএস অফিসার অনুজের। কিন্তু বিয়ের পরে অনুজের সাথে গুড্ডি তার সম্পর্কটাকে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলেও অনুজ সম্পর্কটাকে মেনে নেয় না। তাই তাদের মধ্যে ডিভোর্স হয়ে যায় এবং তারপর অনুজ গুড্ডির প্রতি তার ভালোবাসা বুঝতে পারে। তারপর শিরিনের সঙ্গে অনুজের বিয়ে হলেও সে গুড্ডির সঙ্গে সম্পর্ক রাখতে শুরু করে।

কিন্তু সম্প্রতি ধারাবাহিকের পর্ব গুলিতে দেখা যাচ্ছে অনুজ যাতে সুখী থাকে সেই জন্য যুধাজিতের সঙ্গে গুড্ডি বিয়ে করতে রাজি হয়েছে। কিন্তু গুড্ডির বিয়ে হয়ে যাচ্ছে শুনে, অনুজ একজন আইপিএস অফিসার হয়েও নিজেকে সামলাতে পারছে না। আর সেই জন্য সে ম’রে যাওয়ার পথ অনুসরণ করেছে। আর বিয়ের দিন তার একটি বড় দুর্ঘটনা ঘটে এবং সে হাসপাতালে ভর্তি হয়। তাই জন্য গুড্ডি বিয়ের মন্ডপ থেকে ছুটে অনুজের কাছে চলে আসে।

কিন্তু এরপরেও দেখা যাচ্ছে গুড্ডি হঠাৎ করেই আইপিএস অফিসার হওয়ার ট্রেনিং নিতে যাচ্ছে, যা দেখে রীতিমতো হতবাক দর্শক। তার কারণ কিছুদিন আগে পর্যন্ত দেখা গিয়েছে ধারাবাহিকে যে গুড্ডি টুয়েলভ পাস করেছে এবং এখন সে কলেজে পড়ে কিন্তু সে কলেজ পাশ করে কী ভাবে আইপিএস অফিসার হয়ে গেল আর তা আবার এক বছরের মধ্যে সেটাই উত্তর খুঁজে দর্শক!

এই নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনরা গুড্ডি ধারাবাহিককে ট্রোল করছে এবং একজন লিখেছেন,

“গুড্ডি কিভাবে এক বছরের ভেতরে ক্লাস 12 পাশ করে বি.এ কমপ্লিট করে IPS অফিসার হয়ে গেল ?”

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button