Bangla Serial

Subhadra: জন্ম পরিচয়ে হিন্দু ব্রাহ্মণ, ঝড়ঝাপটা পেরিয়ে বিয়ে করেছেন মুসলিম মানুষকে! সিরিয়ালে সিরিয়াস চিঠির মা হলেও বাস্তব জীবনে বেজায় রোমান্টিক সুভদ্রা মুখার্জি

বাংলা টেলিভিশন তথা চলচ্চিত্র জগতের একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী হলেন সুভদ্রা মুখোপাধ্যায়। এক সময় প্রচুর বাংলা সিনেমায় কাজ করেছেন। এই মুহূর্তে তিনি একাধিক জনপ্রিয় ধারাবাহিকে কাজ করছেন। সম্প্রতি তাকে দেখতে পাওয়া যাচ্ছে “সাহেবের চিঠি” ধারাবাহিকে চিঠির মায়ের ভূমিকায়। ধারাবাহীকে তিনি যতই মা ,জেঠিমা এমন ধরনের অভিনয় করেন না কেন বাস্তবে মানুষটা একদমই অন্যরকম। খুবই মজার একটি মানুষ সুভদ্রা মুখোপাধ্যায়।

এর আগেও তার “দিদি নাম্বার ওয়ানে” এসে বলা একাধিক কথা নিয়ে প্রচুর ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ব্যক্তিগত জীবনে কি করেন না করেন এই বিষয়েই তিনি দর্শকদের বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে তার বয়স এমন কিছু না হলেও তার ছেলে অনেকটাই বড়। তিনি যখন কোন অনুষ্ঠান বাড়িতে যান সেখানে গিয়ে তার ছেলে এসে তাকে কিছু বললে তিনি তার ছেলেকে বলেন যে আমি তোমার মা নই তোমার মা ওদিকে আছে। নেহাতই মজা করে অভিনেত্রী এই কথাগুলি বলেন।এইসব মজার কথা শুনে দর্শকরা এই অভিনেত্রীকে বেশ মজার মানুষই মনে করেন।

‘I can’t eat properly if my serial gets a poor TRP’: Subhadra
সম্প্রতি তিনি তার অবাঙালি স্বামীকে নিয়ে এসেছিলেন “দিদি নাম্বার ওয়ানে”। তিনি তাদের দুজনের সম্পর্কের রসায়ন নিয়ে অনেক কথাই বলেন। এছাড়া তার মেয়ে আর বাবার সম্পর্ক ঠিক কতটা গভীর এই নিয়েও কথা বলেন।

সেই কথা বলতে বলতেই তিনি বলেন যে রাত ২- ২.৩০ টে যখনই তিনি শুটিং সেরে বাড়ি আসেন তখন তিনি তার স্বামীকে ঘুম থেকে তুলে দিয়ে গল্প করতে বসিয়ে দেন। স্বভাবত তার স্বামী খুবই কম কথা বলেন।


এছাড়া তিনি আরো বলেন, যে তার স্বামী যেহেতু কলকাতায় থাকেন না তাই আজকাল তার মেয়ে তার স্বামীকে জোর করে কলকাতায় রেখে দেয়। আর তাই মেয়ের ফলে অভিনেত্রীর অনেক লাভ হয়ে যায়। এর সঙ্গে অভিনেত্রী বলেন যেহেতু তারা দুজনে অনেকটা দূরে দূরে থাকেন তাই তাদের মধ্যে এখনো প্রেম আগের মতই রয়েছে। এসব কথার মাঝখান দিয়ে তিনি মজার ছলে তাদের দুজনের সম্পর্ক নিয়ে একাধিক কথা বলেন। সেই শুনে দর্শকরা তো বেশ মজাই পেয়েছেন। তাদের একাংশ তো যে “সাহেবের চিঠি” ধারাবাহিকের চিঠির মায়ের এমন কীর্তি দেখে হতবাক!

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button